গৃহবধুকে বটি দিয়ে এলোপাতাড়ী কুপিয়ে আহত

0

নড়াইল অফিস : নড়াইল সদর উপজেলার মুলিয়া ইউপির ননীক্ষির গ্রামে সংখ্যালঘুদের হিন্দু সম্প্রদায়ের কাকলী বিশ্বাস নামে এক গৃহবধুকে গভীর রাতে কুপিয়ে গুরুতর আহত করেছে দূর্বৃত্তরা। গুরুতর আহত কাকলী বিশ্বাসকে নড়াইল সদর হাসপাতালে চিকিৎসার জন্য ভর্তি করা হয়েছে। জানা গেছে, গৃহবধুর স্বামী দিনেশ বিশ্বাস ভারতে বেড়াতে গিয়েছে। দিবাগত রাতে কাকলী রানী তার পুত্র দিপ্তকে নিয়ে প্রতিদিনের ন্যায় বসত ঘরে ঘুমিয়েছিল। ওই দিন গভীর রাতে ঘরের বেরা এবং সৌর বিদুৎতের তার কেটে ঘরে প্রবেশ করে দূর্বৃত্তরা। ঘুমন্ত অবস্থায় কাকলীকে বটি ও দেশীয় অস্ত্র দিয়ে এলোপাতাড়ী কুপিয়ে গুরুতর আহত করে। কাকলী ও তার পুত্রের চিৎকার শুনে প্রতিবেশিরা দৌড়ে এলে দূর্বৃত্তরা পালিয়ে যায়। স্থানীয়রা তাকে মুমুর্ষ অবস্থায় উদ্ধার করে সদর হাসপাতালে ভর্তি করেন। কাকলি বিশ্বাস জানায়, রাতে আমি ও আমার পুত্র এবং কন্যা রিনাকে নিয়ে ঘুমিয়ে ছিলাম। গভীর রাতে কে বা কাহারা বিনা কারনে আমার উপর আক্রমন করে আমাকে বলে তোরা ভারতে চলে যা। এই বলে এলোপাথারি কোপাতে থাকে। আমি আমার ছেলে ও রিনা চিৎকার করলে তারা দৌড়ে পালিয়ে যায়। নড়াইল সদর উপজেলার মুলিয়া ইউপির বনগ্রামের, সাংবাদিক কৃপা বিশ্বাস, বলেন এ ঘটনায় ওই এলাকায় সংখ্যালঘুদের হিন্দু সম্প্রদায়ের মাঝে চরম আতঙ্ক বিরাজ করছে। সদর থানার পুলিশ পরিদর্শক (তদন্ত) হরিদাস রায় জানায়, ঘটনাটি শুনেছি। অভিযোগ পেলে তদন্ত করে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহন করা হবে। অপরদিকে নড়াইলের সিমানাবর্তি ভাঙ্গুড়ায় বাঘারপাড়া থানা পুলিশ অজ্ঞাত এক কিশোরীর লাশ উদ্ধার করেছে। স্থানীয়ভাবে খবর পেয়ে ভাঙ্গুড়া বাজারের দক্ষিণ পূর্ব পার্শের মাঠের মাছের ঘেরের পানির ভিতরে ভাসমান অবস্থায় পড়ে থাকা এ লাশটি উদ্ধার করা হয়। এ ঘটনায় যশোরের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার ‘খ’ সার্কল ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছেন। এ পর্যন্ত নিহত এ কিশোরীর পরিচয় পাওয়া যায়নি। তার বয়স আনুমানিক ১৬ বছর হতে পারে। তার পরনে ছিল গোলাপি রঙ্গের উপর কালো ফুল দেওয়া সালয়োর কামিজ। জামদিয়া ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান কামরুল ইসলাম টুটুল জানিয়েছেন, ভাঙ্গুড়া গ্রামবাসীর মধ্যমে এ খবরটি পেয়েছেন। এ বিষয়ে বাঘারপাড়া থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) জসীম উদ্দীন জানিয়েছেন, স্থানীয়দের নিকট থেকে খবর পেয়ে ঘটনাস্থল থেকে লাশটি উদ্ধার করা হয়েছে। ধারনা করা হচ্ছে যে, এ কিশোরীকে রবিবার রাতের যে কোন সময় শ্বাসরোধ করে হত্যা করে পানিত ফেলা হয়েছে।