শার্শায় ২ কেজি হেরোইন ও ৭৪৬ পিছ ইয়াবা উদ্ধার

0

বেনাপোল অফিস : শার্শার লক্ষনপুর ইউনিয়নের দুর্গাপুর গ্রাম থেকে ১ কেজি ৮ শত গ্রাম হেরোইন ও ৭৪৬ পিছ ইয়াবা উদ্ধার করেছে বিজিবি। তবে কাউকে আটক করতে পারে নাই। শনিবার রাত সাড়ে ১২ টার সময় দুর্গাপুর গ্রামের আখতার হোসেনের বাড়ি থেকে মাদককের এ চালানটি উদ্ধার করা হয়। আক্তার হোসেন ওই গ্রামের তৈয়ব আলীর ছেলে। আাক্তার হোসেন এর মা ফিরোজা বেগম ও স্ত্রী জেসমিন আরা খাতুন বলেন, আক্তার একজন কৃষক। সে সামান্য জমি চাষাবাদ করে। তবে সে ২/৩ বছর আগে বিভিন্ন লোকের ভারত থেকে আনা মালের জন হিসাবে কাজ করত। এখন সে এসব মালের জন হিসাবে কাজ করে না। এছাড়া তার বা সে জন হিসাবে অন্য কারো মাল যদি বহন করবে তবে এত টাকার মাল কেন বাহিরে রাখবে। সে কিডনি সমস্যায় দির্ঘদিন ভুগছে। স্থানীয়রা জানায় আক্তার একজন দিন মজুর । সে অত্যান্ত গরীব মানুষ। সে এত টাকার মাদক কোথা থেকে আনবে। তাকে কেউ শত্রুতা মুলক ভাবে ফাসানোর জন্য এ কাজ করে থাকতে পারে।

আক্তার হোসেন মোবাইল ফোনে এ প্রতিবেদককে বলেন, আমি একজন গরীব মানুষ। আমার স্ত্রী ও আমি বিভিন্ন রোগে ভুগছি। আমাকে শত্রুতা মুলক দুর্গাপুর গ্রামের আজিতের ছেলে রমজান ফাঁসিয়েছে। রমজান এলাকায় একজন কুখ্যাত চোরাকারবারি। আমি তার একটি ফেনসিডিলের চালান সম্প্রতি আন্দোলপোতা থেকে বিজিবিকে দিয়ে ধরিয়ে দেওয়ায় সে আমাকে ফাসানোর জন্য আমার বাড়ির ঘরের বাইরে বাশের সাথে ব্যাগে এসব মাদক রেখে বিজিবিকে খবর দিয়ে ধরিয়ে দেয়। এছাড়া আমার মাল হলে আমি কেন এসব মাল ঘরে না রেখে বাইরে রাখব। এটা একটি চক্রান্ত। এছাড়া আমি গতকাল রাত্রে বাড়ি ছিলাম না। আমার বোনের বাড়িতে ছিলাম। রমজানের নামে ফেনসিডিলের মামলা আছে বলে সে দাবি করে।

৪৯ বিজিবি, ধান্যখোলা ক্যাম্পের সুবেদার গোলাম ছরোয়ার বলেন, গোপন সংবাদের ভিত্তিতে আক্তারের বাড়িতে অভিযান চালিয়ে তার ঘরের মধ্যে থেকে ১ কেজি ৮ শত গ্রাম হেরোইন ও ৭৪৬ পিছ ইয়ায়া উদ্ধার করা হয়। এসময় আক্তার ঘর থেকে কৌশলে পালিয়ে যায়। উদ্ধারকৃত মাদক শার্শা থানায় আক্তারকে পলাতক আসামি দেখিয়ে মামলা দিয়ে জমা করা হয়েছে।