নড়াইলের উন্নয়ন কাজের গুণগত মান নিয়ে অনিয়ম দুদকের জটিকা অভিযান!!

4

নড়াইল অফিস : নড়াইলের উন্নয়ন কাজের গুণগত মান নিয়ে দুদকের জটিকা অভিযান!! জেলা মহাসড়কের ১২পয়েন্ট ১৫০ কিলোমিটার রাস্তার নির্মাণ কাজটি নড়াইল সড়ক ও জনপথ বিভাগের অর্থায়নে বাস্তবায়িত হচ্ছে। রানা বিল্ডার্স (প্রাঃ) লিঃ এস,এস, বিল্ডার্স এন্ড ইঞ্জিনিয়ার্স লিঃ মেসার্স ইডেন প্রাইভেট জয়েন্ট ভেন্সার্স ঠিকাদার হিসেবে এ সড়ক নির্মাণ কাজটি বাস্তবায়ন করছেন। আমাদের উজ্জ্বল রায় নড়াইল জেলা প্রতিনিধি জানান, এ রাস্তার জন্য চুক্তিমূল্য ২৪কোটি ৪৯লক্ষ ৭০হাজার ২০৬ টাকা। কাজটির কার্যাদেশ দেয়া হয় চলতি বছরের ৩ফেব্রুয়ারি এবং কাজটি ২০২০ সালের ৩০ জুনে শেষ হওয়ার কথা রয়েছে। এ সড়ক নির্মাণ কাজে অনিয়মের অভিযোগ পেয়ে দুর্নীতি দমন কমিশন যশোর অফিসের সহকারি পরিচালক মো.মোশারফ্ফ হোসেনের নেতৃত্বে সরেজমিনে অভিযান পরিচালিত হয়। এ সময় অন্যান্যেদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন, নড়াইলের সড়ক ও জনপথ বিভাগের উপ-সহকারি প্রকৌশলী মো.ইমরান হোসেন,জেলা দুর্নীতি প্রতিরোধ কমিটির সাধারণ সম্পাদক কাজী হাফিজুর রহমান, ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠানের মালিক মো.রেজাউল আলম, ঠিকাদার মঈনউদ্দিন দুলুসহ স্থানীয় গণ্যমান্য ব্যক্তিবর্গ। জানা গেছে, নড়াইল জেলা দুর্নীতি প্রতিরোধ কমিটির (দুপ্রক) লক্ষে জনসচেতনতামূলক প্রচারণার পর এবং মাঠ থেকে দুর্নীতি দমন কমিশনের (দুদক) হটলাইন ‘১০৬’ নম্বরের কল পেয়ে দুদক প্রধান কার্যালয়ের নির্দেশে সরেজমিনে চলমান নড়াইলের লোহাগড়া-ন’হাটা-কালিশংকরপুর-মোহাম্মদপুর জেলা মহাসড়ক উন্নয়ন কাজের গুণগত মানোন্নয়নে সড়কের কাজ পরিদর্শন করেন। এ পরিদর্শনকালে সহকারি পরিচালক মো.মোশারফ্ফর হোসেন বলেন, ‘প্রায় ২কোটি টাকার যে মাটির কাজটা আছে। এখন পর্যন্ত সেটা অসম্পূর্ণ আছে। হ্যাজিং থেকে এক মিটার মাটির কাজ সিডিউল মোতাবেক পুরণ করে স্লোভ করতে হবে। সড়ক নির্মাণ কাজে নিয়োজিত ইঞ্জিনিয়ার ও ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠানের মালিকদের টেকসই সড়ক নির্মাণ কাজ করার আহবান জানান। এ সময় দুদককে ঠিকাদার মো.রেজাউল আলম কাজের গুণগত মান বজায় রেখে কাজ করার নিশ্চয়তা প্রদান করেন। নড়াইলের লোহাগড়া-ন’হাটা-কালিশংকরপুর-মোহাম্মদপুর জেলা মহাসড়কের ১২পয়েন্ট ১৫০ কিলোমিটার রাস্তার নির্মাণ কাজটি।