শ্রীলঙ্কায় গির্জা-হোটেলে বোমা হামলা, নিহত ৪৯

9
কলোম্বোর গীর্জায় হামলা চালানো হয়েছে।

সোনালী দিন ডেস্ক : শ্রীলঙ্কায় তিনটি গির্জা ও তিনটি হোটেলে বোমা হামলার ঘটনা ঘটেছে। এ ঘটনায় কমপক্ষে ৪২ জনের প্রাণহানি ঘটেছে। আর আহত হয়েছেন আরও ২৮০ জনের বেশি।

রোববার (২১ এপ্রিল) সকালে দেশটির রাজধানী কলম্বোর উত্তরাঞ্চলের গির্জা ও নিকটবর্তী নেগোম্বা শহরের গির্জা এবং আশপাশের কয়েকটি হোটেলে এ হামলার ঘটনা ঘটে।

রোববার খ্রিস্টান ধর্মালম্বীদের বড় ধর্মীয় উৎসব ইস্টার সানডে। প্রার্থনার জন্য খ্রিস্টান ধর্মাবলম্বীরা গির্জায় জড়ো হতে থাকেন। আর এর মাঝেই পৃথক জায়গায় এ হামলা চালানো হয়েছে।

শ্রীলঙ্কার রাজধানী কলম্বোয় একাধিক গির্জা ও অভিজাত হোটেলে বোমা হামলার ঘটনা ঘটেছে। এতে এখন পর্যন্ত ৪৯ জন নিহত ও ৩ শতাধিক মানুষ আহত হওয়ার খবর দিয়েছে গণমাধ্যম।

এনডিটিভি ও ইন্ডিয়া টুডে’র খবরে বলা হয়েছে, স্টার সানডে’র প্রার্থনা চলাকালে রোববার সকালে কলম্বোতে অন্তত ৬টি স্থানে বোমা হামলা চালানো হয়েছে। এর মধ্যে চারটি গির্জা, দুটি অভিজাত হোটেলের এই হামলায় ৪৯ জন নিহত ও ২৮০ জন আহত হয়েছেন।

কলম্বো পুলিশের মুখপাত্র রুয়ান গুনাসেকারা জানান, স্থানীয় সময় সকাল পৌনে ৯টার দিকে সিরিজ এই হামলা চালানো হয়। তখন অনেকে গির্জায় প্রার্থনা করছিলেন।

পুলিশ জানিয়েছে, কলম্বোর কোচিকাদে, কাতুওয়াপৃথিয়া, কিংসবারি ও বাত্তিকোলার গির্জা লক্ষ্য করে বোমা হামলা চালানো হয়েছে।

শ্রীলঙ্কায় গির্জা-হোটেলে বোমা হামলা

রাজধানীর নেগম্বোর কাতুওয়াপৃথিয়ার সেন্ট সেবাস্টিন গির্জা কর্তৃপক্ষ তাদের ফেসবুক পেজে হামলায় ক্ষতিগ্রস্ত গির্জার ভেতরে ছবি প্রকাশ করে জনতার সাহায্য চেয়েছেন। এতে গির্জার চেয়ার ও ফ্লোরে ছোপ ছোপ রক্ত লেগে থাকতে দেখা গেছে।

এসব গির্জা ছাড়াও দ্য সাংরি-লা ও সিনামন গ্র্যান্ড হোটেলে বোমা হামলা চালানো হয়েছে। তবে, এখন পর্যন্ত হামলার কারণ জানা যায়নি এবং কোনো গোষ্ঠীও দায় স্বীকার করেনি।

কলম্বো ন্যাশনাল হাসপাতালের পরিচালক বার্তা সংস্থা রয়টার্সকে বলেছেন, বহু মানুষকে হাসপাতালে আনা হয়েছে। আহতদের চিকিৎসা দিতে হিমশিম খাচ্ছেন চিকিৎসকরা।